Breaking News
Home / গাজীপুর / কাপাসিয়া / কাপাসিয়ায় বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরির হিড়িক

কাপাসিয়ায় বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরির হিড়িক

কাপাসিয়ায় বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরির হিড়িক

কাপাসিয়া (গাজীপুর) প্রতিনিধি: গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলায় ট্রান্সফরমার ও ট্রান্সফরমারের তার চুরির হিরিক পড়েছে। প্রতিরাতেই কোন না কোন এলাকায় ট্রান্সফর্মার চুরি হচ্ছে। পল্লীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ ট্রান্সফর্মার চুরি বন্ধে তেমন কোন ভূমিকা না থাকায় গ্রাহকরা অসন্তুষ্ট হচ্ছেন।

জানা যায়, গত ৬ মাসে শতাধিক গ্রাহকের চুরি যাওয়া ট্রান্সফরমার পুণস্থাপনে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রাত্যন্ত অঞ্চলের বিদ্যুত গ্রাহকেরা। এতে গ্রাহকদের আর্থিক ক্ষতির পাশাপাশি নেতি বাচক প্রভাব পড়ছে ফসল উৎপাদনে। সেচে ঘাটতি দেখা দিয়েছে।
থানা ও সিভিল প্রশাসনসহ বিভিন্ন জায়গায় বিষয়টি অবহিত করেছেন স্থানীয় পল্লী বিদ্যুত বিভাগ । কিন্তু কোনো অবস্থাতেই চুরি ঠেকানো যাচ্ছে না। নতুন ট্রান্সফরমার লোকালয়ে পুন:স্থাপন করে চেইন দিয়ে তালাবদ্ধ রাখার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন স্থানীয় পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তারা।

এসব এলাকাার মধ্যে রয়েছে রায়েদ লোহাদী, বিবাদিয়া, বেলাশী, আমরাইদ, তরগাঁও, নামিলা, কপালেশ্বর, সোহাগপুর বড়িবাড়ীসহ বিভিন্ন গ্রাম। বৈদ্যুতিক খুটির ট্রান্সফরমার খোলে মূলত তামার তার চুরি করছে চোরেরা।

গত প্রায় এক মাস আগে বাড়ির পাশ থেকে ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলার সিংহশ্রী ইউনিয়নের বড়িবাড়ি গ্রামের আনোয়ার হোসেন। ট্রান্সফরমার পুন:স্থাপনের জন্য গ্রাহকদেরকে নিজ খরচে সংগ্রহ করে দিতে বলেছেন বিদ্যুত বিভাগ। কিন্তু ট্রান্সফরমার কেনার জন্য অর্থ যোগান দেওয়া সম্ভব হয় না এমনকি আমার নিজেরও অক্ষমতা রয়েছে।

বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছিল উপজেলার আমারাইদ গ্রামের তাজলিম বেগমের। তিনি বলেন, ২১ হাজার টাকা দিয়ে ট্রান্সফরমার কিনেছেন। নামিলা গ্রামের ফজলুল হক জানান, আমার ট্রান্সফর্মার চুরি হওয়ার পর ৪২ হাজার টাকা জমা দিলে নতুন ট্রান্সফর্মার লাগিয়ে সংযোগ দেওয়া হয়।
সামিট গ্রুপ এর সিনিয়র সিস্টেম ইঞ্জিনিয়ার পারভেজ মিয়া বলেন, লোহাদী এলাকা থেকে ৬টি ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে। বিভিন্ন মোবাইল অপারেটরের টাওয়ারে বসানো ট্রান্সফরমারও চুরি হচ্ছে। আমরা থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছি। তিনি বলেন, শুনেছি রবি কোম্পানীর ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে।
বেলাশী গ্রামের বিদ্যুত গ্রাহক হাববিবুর রহমান পন্ডিত, আবুল হোসেন, কামরুল মাসুদ বিপ্লব, শরীফ হোসেন, আ. বাতেন বলেন, রাতের অন্ধকারে কে বা কারা আমাদের ট্রান্সফরমারের তার চুরি করে নিয়ে গেছে। চুরি যাওয়া বেশির ভাগ ট্রান্সফরমারের ঢাকনা খুলে ভিতরের তার নিয়ে গেছে। চুরি ঠেকানো বন্ধে নিজেরাই ট্রান্সফরমারের মুখ ঝালাই করে আটকে দিয়েছি। এতে ঝুঁকি থাকলেও চুরি ঠেকাতে বিকল্প কিছু ভাবতে পারছি না।
স্কুলের ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে বলে জানিয়েছেন লোহাদী স্কুলের প্রধান শিক্ষক আফরোজা সুলতানা। তিনি বলেন, ট্রান্সফরমারের খোলসটা ছিল, ভেতরের সব তার নিয়ে গেছে। আমরাইদ মিন্টু সিকদারের বাড়ী সংলগ্ন ট্রান্সফরমার, ভুলেশ্বর গ্রামের আল আমীনের সেচ পাম্প, বামনখলা গ্রামের শরীফ সিকদারের সেচ পাম্প চুরি হয়েছে। আমারাইদ মোল্লা ফিলিং ষ্টেশন থেকে জেনারেটর ব্যাটারি চুরি হয়েছে।
ভুক্তভোগী নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই জানান, সাধারণ মানুষের বিদ্যুতের খুঁটি বেয়ে উঠার সক্ষমতা নেই। পল্লী বিদ্যুতের প্রশিক্ষিত লোক ছাড়া কেউ ঝুঁকিপূর্ণ এসব খুঁটিতে বেয়ে উঠতে পারবে না বা সাহস করবে না। একটি ট্রান্সফরমার চুরি হলে সাধারণ বিদ্যুত গ্রাহকদের চাঁদা তুলে নতুন ট্রান্সফরমার পুন:স্থঅপন করতে হয়। অনেকে চুরি ঠেকাতে চাঁদা তুলো ওয়ার্কসপের কারিগর দিয়ে ট্রান্সফরমারের মুখ ঝালাই করে দিচ্ছে। ট্রান্সফর্মার চুরি বন্দে পল্লীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ তেমন কোনো ভূমিকা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন গ্রাহকরা।
কাপাসিয়ার সিনিয়র ইলিকট্রিশিয়ান তৈয়ুবুর রহমান জাননা, কিছুদিন আগে বড়পুশিয়া গ্রাম থেকে ১৫ কেভির ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে। ওই ঘটনায় এলাকাবসীর কাছে পাঁচ চোর ধরা পড়েছে। তারা আশপাশের থানার ভাঙ্গারী জিনিস ক্রেতা। সনমানিয়া এলাকায় ট্রান্সফরমার চুরি করতে গিয়ে বিদ্যুৎ স্পর্শে এক চোরের মৃত্যু হয়েছে। লাইনম্যান বাচ্চু মিয়া বলেন, ট্রান্সফরমার চুরি বিষয়ে আমার কাছে কোনো তথ্য নেই।
গাজীপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতি-২ এর প্রশাসনিক কর্মকর্তা শাহীন মিয়া বলেন, চুরি বন্ধে মাইকিং, লিফলেট বিতরণসহ বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে। গ্রাহক সচেতন হতে আমরা গ্রাহকদের উদ্বুদ্ধ করছি। তাছাড়া গ্রাহকেরা দলবদ্ধভাবে পাহাড়াসহ বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহন করেছে।

গাজীপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতি-২ এর চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম জানান, চুরির ঘটনায় প্রথমবার পল্লী বিদ্যুত সমিতি ৫০ শতাংশ দামে ট্রান্সফরমার সরবরাহ করে। দ্বিতীয়বার ঘটনা ঘটলে গ্রাহককে পুরো টাকা বহন করতে হয়।
গাজীপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতি-২ কাপাসিয়ার জোনাল অফিস উপ মহা ব্যবস্থাপক (ডিজিএম) রুহুল আমীন বলেন, সবাইকে আরো সচেতন হতে হবে। স্থানীয়ভাবে কমিটি গঠন করে পাহাড়া দিতে হবে। আইন শৃংখলা বাহীনী আরো সচেতন হলে, তৎপর হলে চুরি কমতে পারে।

আমরাইদ সাব জোনাল অফিসের ভারপ্রাপ্ত এজিএম আনিসুর রহমান, ব্যাপক চুরির ঘটনায় আমরা সমস্যায় অঅছি। ইতোমধ্যে এ বিষয়ে এসপি, ডিসি, ইউএনও এবং থানায় অবগত করেছি।

গাজীপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতির মহা ব্যবস্থাপক (জিএম) প্রকৌশলী গোলাম মোস্তফা জানান, আমরা থানা পুলিশকে জানিয়েছি। নিজের সম্পদ নিজেকে রক্ষা করতে হবে।

কাপাসিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কাশেম বলেন, চুরি ঠেকাতে এলাকাভত্তিক পাহাড়ার ব্যবস্থা করে দিয়েছি। এলাকাবাসী সচেতন হচ্ছে। আশা করছি চুরি ঠেকানো সম্ভব।

 

 

About majibur-bhai

Check Also

কাপাসিয়ায় অসহায়দের মাঝে কম্বল বিতরণ

কাপাসিয়ায় অসহায়দের মাঝে কম্বল বিতরণ কাপাসিয়া প্রতিনিধিঃ কাপাসিয়া উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের উদ্যোগে কম্বল বিতরণ করা …

Leave a Reply

Your email address will not be published.